নারী জলদস্যুর কাহিনী 

আমরা সোমালিয়ার জলদস্যুদের কথা শুনেছি। কিন্তু আপনি কি জানেন ১৭ ও ১৮ শতক ছিল জলদস্যুর স্বর্ণযুক।চীন সাগর, ভারত সাগর, ক্যারিবীয় সাগরে জলদস্যুর উৎপাত ছিল অনেক।তো আজকে আমরা পৃথিবীর বিখ্যাত পাঁচজন নারী জলদস্যুর নাম ও কাহিনি জানবো

১. চিং শী

চিং শী তথা চেং ই সাও ছিলেন চীনের একজন বিখ্যাত নারী জলদস্যু । এই নারী চীন সাগরে একটি ভয়ংকর রূপ হিসাবে আবির্ভূত হয়েছিলেন। চিং শী তার বিশাল জলদস্যু বাহিনী নিয়ে চিন নসাগর দাপিয়ে বেড়াতেন। এই নারী এতটাই ক্ষমতাধর জলদস্যু ছিলেন যে তিনি যুক্তরাজ্য,  পর্তুগিজ এবং চীনের রাজবংশর জন্য আতঙ্ক তৈরি করেছিলেন। উনিশ শতকের শুরুর দিকে  পুরো দুনিয়ায় সারা জাগানো এই জলদস্যুর ৩০০ ছোট জাহাজ এবং ২০ থেকে ৪০ হাজার জলদস্যু সদস্য  ছিল। তিনি কখনো বিচারের মুখোমুখি হননি । ১৭৭৫ সালে জন্ম নিয়ে ১৮৪৪ সালে মৃত্যুবরণ করেন। এই নারী জলদস্যুর  সম্পর্কে জানা যায় তিনি একটি পতিতার ঘরে জন্ম নেন এবং পতিতাবৃত্তি করতে থাকেন। একবার জলদস্যু বাহিনীর তাকে  অপহরণ করেন। বিখ্যাত জলদস্যু জেং হিকে তাকে বিয়ে করেন। স্বামীর মৃত্যুর পরে তিনি জলদস্যু বাহিনীর দায়িত্ব নেন। এই নারী সম্পর্কে বিভিন্ন সিনেমা,  ভিডিও গেমস এবং বিভিন্ন বই পাওয়া যায়। 


২. অ্যান বনি

অ্যান বনি ছিলেন একজন আইরিশ নারী জলদস্যু।১৭০২ সালে জন্মগ্রহণ করেন এবং ১৭৮২ সালে ৮০ বছর বয়সে তিনি মৃত্যুবরণ করেন। অ্যান বনি সম্পর্কে খুব বেশি জানা যায় না। জেমস বনি নামে এক নাবিককে তিনি বিয়ে করেন। তার স্বামীও কিছুকাল জলদস্যুতার পেশায় নিযুক্ত ছিলেন। অ্যান বনি ক্যারিবীও সাগরের জলদস্যুতা করতেন 


৩. ম্যারি রিড

ম্যারি রিডের জন্ম ইংল্যান্ডে ধারণা করা হয় ১৬৭০ সালে তিনি জন্মগ্রহণ করেন। ম্যারি রিডের  পিতৃ পরিচয় না থাকায় তার মা তাকে ছেলেদের পোশাক পরিয়ে বড় করেছেন। সবাই ভাবতো তিনি একজন ছেলে। পুরুষ সেজে  বড় হয়ে তিনি ব্রিটিশ মিলিটারিতে যোগদান করেন এবং একজন সেনার সদস্যকে   বিবাহ করেন।স্বামীর মৃত্যুর পর তিনি আবার পুরুষের বেশ ধারণ করেন। হল্যান্ডের মিলিটারিতে যোগদান করেন সেখানেও শান্তি না পেয়ে তিনি একটি জাহাজে করে ওয়েস্ট ইন্ডিজের উদ্দেশ্যে  চলে যান। হয়তো পরবর্তীতে ক্যারিবীয় সাগরে তিনি জলদস্যুতা করতে থাকেন। ১৮ শতক ছিল জলদস্যুদের জন্য স্বর্ণযুগ।   ধারণা করা হয় ১৭২১ সালে জামাইকার জেলখানায় তার মৃত্যু হয়। 

৪. রেচেল ওয়াল 

রেচেল ওয়াল ছিলেন  একজন আমেরিকান নাগরিক। ১৭৬০ সালে তার জন্ম হয়। স্বামী জর্জ ওয়াল জাহাজে কাজ করতেন। রেচপল ওয়াল  তার স্বামীর সাথে যোগ দেয়। এক সময় তার স্বামীর হাত ধরে নিউ হাম্পসশায়ার উপকূলে জলদস্যুতায় যুক্ত হয়। তার স্বামীসহ অন্য জলদস্যুরা কিছু নাবিককে হত্যা করে এবং তাদের মালামাল লুট করে। তার স্বামী সমুদ্রে দুর্ঘটনায় মারা যায়। রেচেল ওয়াল ফিরে এসে চাকরের এর কাজ করতে থাকেন। কিন্তু তিনি তার চুরির অভ্যাস বদলাতে পারেননি। এক নারীর অলংকার  ডাকাতি করতে গিয়ে তিনি ধরা পড়েন। ১৭৮৯ সালে তার ফাঁসি কার্যকর করা হয়। 



বিশ্বের ৫ ভয়ংকর নারী জলদস্যু


Previous Post Next Post