ফায়ার ক্লে এবং ফায়ার ব্রিকস

দূর্গল সামগ্রি, ফায়ার ব্রিকস ও ফায়ার ক্লে এবং রিফ্রেক্টরিজ


কয়েকটি দুষ্প্রাপ্য দুর্গল সামগ্রীর (Rarer Refractories) নাম উল্লেখ কর।

উত্তর : এসব দুর্গল পদার্থ প্রধানত গবেষণাগারে ক্রুসিবলে পরীক্ষা কাজের জন্য ব্যবহার করা হয়।

(১) জিরকোনিয়াম অক্সাইড (ZrO2); গলনাঙ্ক 2700°C

(২) টাইটেনিয়াম অক্সাইড (TiO2); গলনাঙ্ক 1750°C

(৩) বেরিলিয়াম অক্সাইড (Be2O3); গলনাঙ্ক 2200°C 


রিফ্রেকটরিজ মেটেরিয়াল কত প্রকার ও কি কি?


উত্তর : রিফ্রেকটরিজ মেটেরিয়াল তিন প্রকার যথা :

(১) এসিড রিফ্লেকটরি (Acid Refractory)

(২) বেসিক রিফ্রেকটরি (Basic Refractory)

(৩) নিউট্রাল রিফ্রেকটরি।(Neutral Refractory)


এসিড রিফ্রেকটরি : যে মেটেরিয়্যাল বেসিক স্লাগের সহিত বিক্রিয়া করিয়া এসিড লাইনিং হিসেবে ব্যবহৃত হয় তাহাই এসিড রিফ্রেকটরি। স্যান্ড, গেনিষ্টার ইত্যাদি ইহার প্রয়োজনীয় উপাদান।

বেসিক রিফ্রেকটরি : যে মেটেরিয়াল এসিড স্লাগের সহিত বিক্রিয়া করিয়া বেসিক লাইনিং হিসেবে কাজ করে এবং বেসিক স্লাগের তৈরীতে বাধা দেয় তাহাই বেসিক রিফ্রেকটরি। পেলোসাইট,ম্যাগনেসাইট এবং লাইম ইহার বিশেষ উপাদান।

নিউট্রাল রিফ্রেটরিজ : যাহা এসিড এবং বেসিক উভয়ের কোনটির সাথে বিক্রিয়া না করিয়া কাজ করে তাই নিউট্রাল রিফ্লেকটরি ।ফায়ার ক্লে, ফায়ার ব্রিক, সিলিকেট ইহার আওতাভুক্ত।


Refractory সামগ্রীর বৈশিষ্ট্য আলোচনা কর।

(১) দুর্গল সামগ্রী (Refractory) গলিত ধাতুর ধারক হিসেবে কাজ করে।

(২) চুল্লির ভেতরে দেয়াল তৈরি করে বাইরের খোলকে উত্তপ্ত ও অন্যান্য প্রতিকূল অবস্থা থেকে রক্ষা করে।

(৩) চার্জের অধিক চাপ সহ্য করে ।

(৪) চুল্লির ভেতরের উচ্চ তাপ সহ্য করে ।

(৫) সৃষ্ট গ্যাস নিয়ন্ত্রণ ও গ্যাসের চাপ সহ্য করে।

(৬) ধাতু মল ও গ্যাসের প্রতিক্রিয়া থেকে চুল্লিকে রক্ষা করে ।

(৭) ক্ষয় ও ঘর্ষণ রোধ করে।

(৮) গলন কাজে সহায়তা করে।

(৯) চুল্লির বাইরে তাপ প্রবাহে বাধা দান করে।

(১০) চুল্লি বা অধিক তাপে ব্যবহৃত হাতিয়ারসমূহকে দীর্ঘ

স্থায়িত্ব দানে সহায়তা করে।

(১১) জ্বালানি খরচ কমায় ।

(১২) তরল বা গ্যানীয় অতিক্রম করার মত সজ্জিতা এতে

থাকবে না।


আদর্শ ফায়ার ক্লে এর বৈশিষ্ট্য

উত্তর : আদর্শ তাপ সহিষ্ণু কাদা বা ফায়ার ক্লেতে নিম্নলিখিত বৈশিষ্ট্যগুলো পরিলক্ষিত হয়। যথা-

(১) বুননের (Texture) দিক দিয়ে সুষম হয়।

(২) ফায়ার ক্লে হাত দ্বারা স্পর্শ করলে অনেকটা গ্রিজের মত অনুভূতি আসে।

(৩) ফায়ার ক্লে অবশ্যই ক্ষার (Alkali) মুক্ত থাকবে।

(৪) উচ্চ মানের তাপ প্রতিরোধ ক্ষমতা অবশ্যই থাকবে।

১০। উন্নতমানের ফায়ার ক্লে এর উপাদানগুলো কি কি?

উত্তর ঃ ভাল মানের ফায়ার ক্লেতে নিম্ন লিখিত উপাদানগুলো থাকে-

(১) সিলিকা, SiO2, 50-75%

(২) অ্যালুমিনা, ALO3, 20-25%

(৩) চুন, ম্যাগনেসিয়াম ও আয়রন অক্সাইড, 2.3%

(8) ক্ষার (Alkalis), 1% ও তার চেয়ে কম।


ফায়ার ব্রিক (Fire Bricks) বলতে কি বুঝায়?

উত্তর ঃ ফায়ার ব্রিক : ফায়ার ব্রিকের প্রধান উপাদান হচ্ছে প্রাকৃতিক ফায়ার ক্লে, ফ্লিন্ট ক্লে চূর্ণ, বালি এবং পোড়ানো ফায়ার ক্লে ইত্যাদি।


ভাল ফায়ার ব্রিক (Fire Bricks) এর স্পেসিফিকেশন

উত্তর : ভাল বা ফায়ার ব্রিক এর স্পেসিফিকেশন ও ধর্ম নিম্নেরূপ :

(১) এতে কোন প্রকার চিড় বা ফাটল থাকবে না ।

(২) ইটসমূহ আদর্শ মাপের থাকবে, যেমন : 225mm x

112mm x 62mm তবে ছোট ছোট বিভিন্ন আকৃতির

টুকরাসমূহের পূরত্ব যথাক্রমে 50mm, 30mm ও 25mm

হয়ে থাকে ।

(৩) এগুলোতে ওয়্যার কাট (Wire Cut) থাকবে।

(৪) এদের অভ্যন্তরীণ গঠন দানাদার হবে।

(৫) ইট ঘন বুননের (Texture) হবে।

(৬) সম রংয়ের হওয়া উচিৎ (হলদে সাদা বা সাদা)।

(৭) কোন অবস্থাতেই 1600°C তাপমাত্রার নিচে গলবে না ।


ফায়ার ব্রিক (Fire Bricks) এর ব্যবহার লিখ।

উত্তর: ব্যবহার:

(১) পরাবর্তক চুল্লি তৈরিতে ব্যবহৃত হয়, যা মাঝারি তাপমাত্রায়

কাজ করে ।

(২) যে সমস্ত চুল্লি প্রায়ই ঠান্ডা করা হয় সেসব ক্ষেত্রে। যেমন-

তামা সংকর, রুপা, সোনা ইত্যাদি গলানোর জন্য।

(৩) স্ট্যাক (Stack) এবং ফু (Flues) সমূহের আস্তরণে।

(৪) বাত্যা চুল্লি, ওপেন হার্থ চুল্লি ইত্যাদি জাতীয় চুল্লির। আস্তরনের জন্য ব্যবহৃত হয়।


চূল্লির ইট


Blogger দ্বারা পরিচালিত.