বার ভূঁইয়াদের শাসিত অঞ্চল

 বাংলার বারভূঁইয়া 

ভূঁইয়া শব্দটি ভৌমিক শব্দ থেকে এসেছে যার অর্থ ভূমির অধিপতি বা ভূস্বামী। বাংলার বড় বড় জমিদার নিজ নিজ জমিদারিতে স্বাধীনভাবে রাজত্ব করতেন। বারভূঁইয়াদের শক্তিশালী সেনা ও নৌবহর ছিল।মুঘলদের হাত থেকে নিজেদের জমিদারি টিকিয়ে রাখতে নিজেরা  একজোট ছিল।বারভূঁইয়া বলতে বারো জন জমিদারকে বোঝায় না বরং বারো বলতে এখানে অনির্দিষ্ট সংখ্যক জমিদার বোঝানো হয়েছে। আত্মসমর্পণের মধ্য দিয়ে বারভূঁইয়াদের অবসান ঘটে। ঈসা খানের পর বারভূঁইয়াদের নেতৃত্ব দেয় মুসা খান।মুসা খান ১৫৯৭ সালে মুঘলদের কাছে বশ্যতা স্বীকার করে। 


ঈসা খান ও মুসা খান কোন অঞ্চল শাসন করে?

উত্তর: ঢাকা জেলার অর্ধাংশ, প্রায় সমগ্র ময়মনসিংহ জেলা এবং পাবনা, বগুড়া ও রংপুর জেলার কিছু অংশ।


চাঁদ রায় ও কেদার রায় কোন কোন অঞ্চল শাসন করে? 

উত্তর: শ্রীপুর (বিক্রমপুর ও মুন্সিগঞ্জ)

বাহাদুর গাজী কোন অঞ্চল শাসন করে? 

উত্তর: ভাওয়াল। 

সোনা গাজী কোন অঞ্চল শাসন করে?

উত্তর: সরাইল (ত্রিপুরার উত্তর সীমায়)

ওসমান খান কোন অঞ্চল শাসন করে?

উত্তর: বোকাইনগর (সিলেট)

বীর হামির কোন অঞ্চল শাসন করে?

উত্তর: বিষ্ণুপুর (বাকুড়া)

লক্ষণ মাণিক্য কোন অঞ্চল শাসন করে? 

উত্তর: ভুলুয়া (নোয়াখালী)

পরমানন্দ রায় কোন অঞ্চল শাসন করে?

উত্তর: চন্দ্রদ্বীপ (বরিশাল)

বিনোদ রায় ও মধু রায় কোন অঞ্চল শাসন করে?

উত্তর: চান্দপ্রতাপ  (মানিকগঞ্জ)

মুকুন্দরায় ও সত্যজিৎ কোন অঞ্চল শাসন করে?

উত্তর: ভূষণা (ফরিদপুর)

রাজা কন্দর্পনারায়ন, রামচন্দ্র কোন অঞ্চল শাসন করে?

উত্তর: বরিশাল জেলার অংশবিশেষ। 

মহারাজা প্রতাপাদিত্য কোন অঞ্চল শাসন করে?

উত্তর: খুলনা-যশোর


Blogger দ্বারা পরিচালিত.