বিভিন্ন প্রকার আগুন ও অগ্নি নির্বাপক এর ব্যাবহার

 বিভিন্ন ধরনের অগ্নি নির্বাপক বস্তুর ব্যবহার

বিভিন্ন উৎস হতে অগ্নিকাণ্ড সৃষ্টি হতে পারে।আগুনের  ধর্ম এক হলেও সব আগুনের বৈশিষ্ট্য এক নয়।একটি বস্তু কতোটা দাহ্য তার উপর নির্ভর করে আগুনের তীব্রতা। সব আগুন পানি দিয়ে নেভে না।কোন কোন আগুন পানির স্পর্শে আসলো বিস্ফোরণ পর্যন্ত হতে পারে।অর্থাৎ ভিন্ন ভিন্ন আগুন নেভাতে ভিন্ন ভিন্ন পদ্ধতি অবলম্বন করা হয়। ।তাহলে চলুন জেনে নেয়া যাক কোন ধরনের আগুনে কোন ধরনের নির্বাপক ব্যবহার করা হয়।

আমরা দাহ্য বস্তুর ধরন অনুসারে কয়েকটি শ্রেণীতে ভাগ করে নেব।


শ্রেণি ভিত্তিক দাহ্য বস্তুভেদে আগুন নেভানোর জন্য যেসব নির্বাপক লাগে

A শ্রেণির দাহ্য বস্তু  

কাঠ, টেক্সটাইল ও কাগজ জাতীয় দাহ্য বস্তুর জন্য অগ্নিনির্বাপক, কাপড় জাতীয় পদার্থ, রাবার ও আবর্জনায় এবং প্লাস্টিকে  আগুন লাগলে পানি, ফোম, হ্যালোট্রন,এবিসি ড্রাই কেমিক্যাল (মাল্টিপারপাজ) ব্যাবহার করা হয়। 


B শ্রেণির দাহ্য বস্তুর ক্ষেত্রে 

অত্যধিক দাহ্য এবং তরল জাতীয় বস্তু যেমন পেট্রোল, তেল,পেইন্ট জাতীয় পদার্থ, ডিজেলে, সলভেন্ট জাতীয় কিছুতে   আগুন লাগলে ফোম, হ্যালোট্রন,এবিসি ড্রাই কেমিক্যাল (মাল্টিপারপাজ),কার্বনডাইঅক্সাইড DCP বা ড্রাই কেমিক্যাল পোর্টেবল, বিসি ড্রাই কেমিক্যাল (রেগুলার),পারপল-(কে) ব্যবহার করা হয়। 


C শ্রেণির দাহ্য বস্তু 

বিভিন্ন ধরনের ইলেকট্রিক্যাল যন্ত্রাংশ যেমন বৈদ্যুতিক তার, কন্ট্রোল প্যানেল, সুইচ,মেশিনারিজ এবং বিভিন্ন ধরনের ইলেকট্রনিকস যন্ত্রে আগুন লাগলে হ্যালোট্রন এবিসি ড্রাই কেমিক্যাল (মাল্টিপারপাজ),    কার্বনডাইঅক্সাইড DCP বা ড্রাই কেমিক্যাল পোর্টেবল, বিসি ড্রাই কেমিক্যাল (রেগুলার), পারপল-(কে)  ব্যবহার হয়।কোনভাবেই পানি দেয়া চলবে না।


D শ্রেণির দাহ্য বস্তুর ক্ষেত্রে 

ম্যাগনেশিয়াম, লিথিয়াম ও টাইটেনিয়াম এ আগুন ধরলে ড্রাই পাউডার ব্যবহার করা হয়। 


E শ্রেণির  দাহ্য বস্তুর ক্ষেত্রে 

সাধারণ তেল জাতীয় কিছু যা রান্না এ জাতীয় কাজে ব্যবহার, গ্রিজ জাতীয় পদার্থে আগুন লাগলে wet powder ব্যবহার হয়। 

সর্বভূক আগুন হইতে সাবধান 

Blogger দ্বারা পরিচালিত.